বকশীগঞ্জ

সাংবাদিক নাদিম হত্যা: প্রধান আসামি কারামুক্ত, শোডাউন

জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলায় সাংবাদিক গোলাম রব্বানি ওরফে নাদিম হত্যা মামলার প্রধান আসামি মাহমুদুল আলম বাবু জামিনে কারামুক্ত হয়েছেন। যদিও হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত বাবুর ছেলে রিফাতকে গত এক বছরেও পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারেনি। মামলাটি বর্তমানে সিআইডি তদন্ত করলেও অগ্রগতি নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে বাদীর পরিবারে। বুধবার বিকেল পাঁচটার দিকে তিনি জেলা কারাগার থেকে মুক্তি পান। কারাগার থেকে বের হয়েই বিশাল শোডাউন করে বাড়ি ফেরেন তিনি।

নিহত সাংবাদিক নাদিমের মেয়ে রাব্বিলাতুল জান্নাত বলেন, ‘হত্যা মামলার মূলহোতা বাবু চেয়ারম্যান কারাগার থেকে বের হয়েই বিশাল শোডাউন করায় আমরা হতবাক হয়েছি। একজন খুনি কার সাহসে শোডাউন করে, সেটা খতিয়ে দেখা জরুরি।’

কারাগারের জেলার আবু ফাত্তাহ জানান, ‘উচ্চ আদালত থেকে জামিন পাওয়ায় বাবুকে আজ বিকেলে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়।’

কারা ফটক থেকে মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসের বিশাল শোডাউনে বকশীগঞ্জের সাধুরপাড়া গ্রামের নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন আসামি মাহমুদুল আলম বাবু। এক ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, ১১টি মাইক্রোসহ শতাধিখ মোটরসাইকেল  নিয়ে শোডাউন করে জামালপুর থেকে মেলান্দহ, ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার সড়ক পথে গ্রামের বাড়ি যান আসামি মাহমুদুল আলম বাবু।

গোলাম রব্বানি নাদিম গত বছরের ১৪ জুন রাতে পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে বাড়ি ফেরার পথে বকশীগঞ্জের পাটহাটি এলাকায় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন। হামলার পরদিন দুপুরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। হত্যার তিন দিন পর ১৭ জুন নিহত রব্বানির স্ত্রী মনিরা বেগম বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় মাহমুদুল আলম, তাঁর ছেলে ফাহিম ফয়সাল ওরফে রিফাতসহ ২২ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। পাশাপাশি ২০-২৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়। মামলার পর ওই মাসেই মাহমুদুল আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর পর থেকে তিনি কারাগারে ছিলেন।

ছবি: আজকের পত্রিকা

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *