সিট কুনু পামু টেনতই উঠপের পাইনে!

জামালপুর রেলওয়ে স্টেশনেদেখা মিলল বয়সের ভারে ন্যুয়ে পড়া জব্বার কাকার। কথায় কথায় জানা গেল তার ঢাকা ভ্রমনের কাহিনী।

জামালপুর বার্তা: কাকা, কডাই থেহি আইসলেন?

জব্বার কাকা: ঢাকাত থিনো জামালপুর আইসলাম খাড়ায়ে খাড়ায়ে।

জামালপুর বার্তা: সিট পান নাই?

জব্বার কাকা: সিট কুনু পামু টেনতই উঠপের পাইনে। আগে থেহি কাডি নাই, হডাত করি আসা ন্যাগলো।

জামালপুর বার্তা: ট্রেনত সিট নাই তো বাসে আসেন না ক্যা?

জব্বার কাকা: বাস কডাইবেন থেহি যায়। আমরা ওইল্লে কবার পাই? ট্যাহাও মেলা নাগে। আবার ঘাডাও খারাপ। বাসত চইড়লে বমি বাড়ায়।

জামালপুর বার্তা: ঢাকা কুনু গেছিলেন?

জব্বার কাকা: বেডার বাসাত। বেডা থাহে। চিকিসসা হবার গেছিলাম। তার যে জল্লা ভালা হছিলাম খাড়া থেহি আসতেই শইল খারার হয়ে গ্যাছে গা।

জামালপুর বার্তা: আপনার বাড়ি কুনতি?

জব্বার কাকা: দিগপাইত বাবা।

জামালপুর বার্তা: আপনার এডা ছবি তুলি? পেপারো দিমু?

জব্বার কাকা: তুলো। পেপারত দিলে মানুষ দেখপ। এই চেহারা দেখলে মানুষ কি কব। থাইগগে, পেপারত দিওনা।

জামালপুর বার্তা: ঠিকাছে, কাকা।

অসংখ্য জব্বার কাকা এখনো ট্রেনে সিট পাবে সেই কল্পনা করেনা। দাঁড়িয়ে আসে ঢাকা থেকে জামালপুর। জামালপুরে এখন সবই হচ্ছে। তবে ঢাকা-জামালপুর যাতায়াত ব্যবস্থাটার উন্নয়নটাই হচ্ছে ধীরগতিতে। দ্রুতই খুলে যাবে সম্ভাবনার দুয়ার। প্রত্যাশা সকললের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *