সকল প্রতিকূলতা জয় করে আহতদের ঢল সামলাচ্ছে গাযার হাসপাতালগুলো

আল জাজিরা:  অপারেশনের মাঝখানে হঠাৎ অন্ধকার হয়ে গেল অপারেশন থিয়েটার । রোগীর গুরুত্বপূর্ণ সংকেত দেখানো ছোট মনিটর ছাড়া আর কিছুই দেখা যাচ্ছে না ।অপারেশনের মাঝখানে  ডাক্তাররা থেমে গেলেন । জেনারেটর চালু হওয়ার পর যখন আলো ফিরে এলে তখনই আবার অপারেশন শুরু করলেন তারা ।

নিজেদের মাটিতে ফিরতে গাজার সীমান্তবর্তী এলাকায় ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ শুরু করার পর সেখানে যে সহিংসতার শুরু হয় তাতে প্রায় দুই হাজারের বেশী মানুষ গুরুতর আহত হয়েছেন যাদের জরুরী চিকিৎসা সেবার প্রয়োজন ।

গাজায় হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তার ও নার্সরা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতি তাদের মধ্যে ২০১৪ সালের যুদ্ধের মত আতংক ছড়িয়েছে । অনেকেই তাদের হতাশা প্রকাশ করেছেন এজন্য যে, তারা এখানকার হাসপাতাল আসা লোকদের জন্য বেশী কিছু করতে পারেন না ।

ঔষধ ও মেডিকেল সামগ্রীর সরবরাহ সংকট, চলাচলের উপর তীব্র সীমাবদ্ধতা, বিদ্যুৎ সংকট এবং সর্বোপরি খারাপ অর্থনৈতিক অবস্থার জন্য হতাহত মানুষের ভীড়ে গাযার স্বাস্থ্যখাত এখন কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করছে ।

গাযার হাসপাতালে কর্মরতরা এখন দ্বিধায় ভুগেন তাদের কি করা উচিত সে বিষয়ে । ডা. আহমদ, যিনি গাযার একটি হাসপাতালের ডাক্তার  তিনি বলেন, “প্রত্যেক দিন আমাদেরকে সিদ্ধান্ত নিতে হয়, কাউকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া উচিত না রাখা উচিত । এদের মধ্যে অনেকেই দারিদ্রতার মধ্যে বসবাস করেন, আমরা জানি আমরা তাদেরকে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে পাঠালে তারা উপযুক্ত সেবা পাবেন না , কিন্তু যদি আমরা তাকে হাসপাতালে রাখি তাতে নতুন কেউ সেবা পাবেন না কারন হাসপাতালে আমাদের পর্যাপ্ত  সুবিধা নেই ।

এখানকার হাসপাতালের কর্মচারীরা খুব ভালোই উপলদ্ধি করেন যে, অর্থনৈতিকভাবে সংগ্রাম করার অর্থ কি, যখন হাসপাতালে আসার পরিবহন খরচও তারা যোগাড় করতে হিমশিম খান ।

এখনও প্রতি শুক্রবার গাযার হাসপাতালগুলোতে সপ্তাহের ব্যস্ততম দিন, হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্যরা সেখানে প্রস্তুত থাকেন দ্রুত প্রতিটি রোগীর পরিচর্যা করেন, রোগীর স্বজনদের সান্ত্বনা দেন এবং তারা তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন সব ধরনের প্রতিকূলতাকে জয় করে ।

মন্তব্য করুন