দেওয়ানগঞ্জে অলৌকিকভাবে গড়ে উঠা গায়েবী মসজিদ

জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানী এলাকায় ৫শ বত্সর পূর্বে অলৌকিকভাবে গড়ে উঠেছিল গায়েবী মসজিদ। বর্তমানে মসজিদের নাম চিকাজানী পুরাতন জামে মসজিদ। এলাকায় গায়েবী মসজিদ নামে সুপরিচিত। এই পুরাতন মসজিদটি এখন পর্যন্ত এর কোন সঠিক ইাতহাস খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে ওই এলাকার বিভিন্ন নবীন-প্রবীণ একাধিক ব্যক্তির কাছে মসজিদ সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা জানায়, জন্মলগ্ন থেকে তারা পূর্বপুরুষের কাছে শুনে আসছেন মসজিদটি অলৌকিকভাবে একরাতে গড়ে উঠেছে। তাই এর নাম গায়েবী মসজিদ । মূল মসজিদের ১ বিরাট গুম্বুজ এবং ৪ কোণায় ছোট আরো ৪টি গুম্বুজ রয়েছে। মসজিদের দেওয়াল প্রায় ৫০ইঞ্চি চওড়া, উত্তর-দক্ষিণে ১টি করে দু’পাশে মোট ২টি ছোট জানালা রয়েছে। প্রবেশ পথের দরজা মাত্র ১টি। মসজিদের ১টি বড় মেহরাব, তার দু’পাশে আরো ছোট ছোট দু’টি মেহরাব, মোট ৩টি মেহরাব রয়েছে। মসজিদের মেহরাবগুলো একটু ভিন্ন প্রকৃতির। অন্যান্য মসজিদের মেহরাবের মত নয়, স্বাভাবিক উচ্চতার চেয়ে নিচু। মসজিদের ইটগুলো এক একটা যেন টালী কিংবা টাইলসের মত বড়। সার্বিকভাবে দেখে মনে হবে অলৌকিক রহস্যের কারণ। ৫শ বত্সরের এই পুরাতন মসজিদটি মুসলিম সভ্যতা কালের সাক্ষী হিসাবে দাঁড়িয়ে আছে। ইতিহাস থেকে জানা যায় ইসলাম ধর্ম প্রচারের স্বার্থে হয়তো কোন পীর-ফকির কিংবা অলি-আওলিয়ার আগমন ঘটেছিল। তারা স্রষ্টার স্মরণে ধ্যানমগ্নের সুবিধার্থে এমনকি তত্কালীন প্রভাবশালী হিন্দু সম্প্রদায়ের হাত থেকে আত্মরক্ষার জন্য নির্জন স্থানকে বেছে নিয়ে সেখানে লৌকিক কিংবা অলৌকিকভাবে মসজিদটি গড়ে তুলেছিলেন। ওই মসজিদের নামে প্রায় ১৫ একর(৪৫বিঘা) জমি ছিল, যা রেকর্ডপত্রে লাখেরাজ খুরিয়াগেন্দা লিখা রয়েছে। অনেকেই বলছেন লাখেরাজ খুরিয়াগেন্দা এ ভাষাটি ফার্সি ভাষা। এর বাংলা অর্থ মসজিদের নামে সমস্ত জমির খাজনা মওকুপ। তার অর্থ ৪৫বিঘা জমি সরকারের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 + 5 =