কোটা সংস্কারে ঐক্যবদ্ধ লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা শিক্ষার্থীদের

চ্যানেল আই: সরকারের সঙ্গে বৈঠকের পর চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন এক মাসের জন্য স্থগিত করা হলেও তা প্রত্যাহার করে ফের রাস্তায় থেকে আন্দোলন চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলে মঙ্গলবার বিকালে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ সাধারণ শিক্ষার্থী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ এ সিদ্ধান্ত জানায়।

বাংলাদেশ সাধারণ শিক্ষার্থী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ব্যানারের ২০ জন প্রতিনিধিই সোমবার সরকারের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছিল।

সোমবার সংসদে মতিয়া চৌধুরী আন্ধোলনকারীদের ‘রাজাকার’ বলায় এবং মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রীর ‘বাজেটের পরে কোটা সংস্কার হবে’ বক্তব্যের প্রতিবাদেই ফের লাগাতার আন্দোলনের এ ঘোষণা আসলো বলে জানান আন্দোলনকারীরা।

তারা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনার সন্তানদের বিপদের দিকে ঠেলে দিবেন না, আপনি এর সুনির্দিষ্ট সমাধান দিন।

সারাদেশে কেন্দ্রীয় কমিটির একক নেতৃত্বে কোটা সংস্কারের আন্দোলন চলবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এই ঘোষণা দেয়া হয়।

প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত সারাদেশ অবরোধ করে রাখার কথা বলেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন পরিষদের আহবায়ক হাসান আল মামুন ও অপর একজন সংগঠক উজ্জ্বল মিয়া। এ সময় অনির্দিষ্টকালের জন্য সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দেন তারা।

তারা জানান, আমরা যেসব ইস্যুগুলো নিয়ে মাঠে নামতে বাধ্য হয়েছি সেগুলো হচ্ছে,  দেশের ৯৮ শতাংশ সাধারণ ছাত্র ছাত্রীদের রাজাকারের বাচ্চা বলার পরেও মতিয়া চৌধুরীর ক্ষমা না চাওয়া, অর্থমন্ত্রীর আজকের সাংঘর্ষিক বক্তব্য, আটককৃতদের মুক্তি না দেয়া এবং অসুস্থদের চিকিৎসার দায়িত্ব না নেয়া।

মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 − 5 =