মেষ্টায় দুই কিশোরী বোন খুন

কালের কন্ঠ: জামালপুর সদর উপজেলার দেউলিয়াপাড়া গ্রামে আজ বুধবার ভোরে দুই স্কুল ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। আজ বুধবার সকালে ঘটনাস্থল থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জামালপুর সদর উপজেলার দেউলিয়াপাড়া গ্রামের শামিম মিয়া তিন বছর ধরে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। দুই মাস আগে তিনি নিজ বাড়িতে ছুটি কাটিয়ে ২০ দিন আগে তিনি আবারও মালয়েশিয়ায় চলে যান। এরপর তার বাড়িতে শামিম মিয়ার স্ত্রী তাছলিমা তার দুই মেয়ে ভাবনা (১৪) ও নুরুন্নাহারকে (১০) নিয়ে বসবাস করতেন। বুধবার রাতে মা তাছলিমা নিজ বাড়িতে ছিলেন না। পরদিন সকালে বাড়িতে ফিরে দুই মেয়ের গলাকাটা লাশ পড়ে থাকতে দেখে প্রতিবেশীদের জানান। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে।

নিহতদের খালু জামালপুর শহরের বটতলা গ্রামের জিয়াউল হক জানান, জামালপুরের দেউলিয়াপাড়া এলাকায় বর্তমানে ভূমি জরিপের কাজ চলছে। সম্প্রতি শামিম মিয়ার স্ত্রী তাছলিমার নামে স্বজনদের কাছ থেকে কেনা ২০ শতাংশ জমির রেকর্ড নিয়ে স্বজনদের সঙ্গে বিরোধ চলছিল। ‌ওই বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য বুধবার দুই মেয়েকে বাড়িতে রেখে তাছলিমা বেগম জামালপুর জেলা শহরে রেকর্ড কর্মকর্তার কাছে যান।

সেখানে তাছলিমা বেগমকে সঙ্গে নিয়ে তিনি নিজে ( জিয়াউল হক) জামালপুর শহরের দেওয়ানপাড়া এলাকায় রেকর্ড কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেন। এরপর তাছলিমা বেগম তার বাবার বাড়িতে গিয়ে রাত্রিযাপন করেন। পরদিন সকালে তিনি দেউলিয়াপাড়া গ্রামে ফিরে দুই মেয়ে নিহত হওয়ার খবর জানান।

জামালপুরে জোড়া খুনের খবর পেয়ে ময়মনসিংহ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের আট সদস্যের একটি দল ঘটনাস্থলে আসেন। এ দলের সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং নিহতের স্বজনদের দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করে জোড়া খুনের রহস্য  উদঘাটনের চেষ্টা করেন।

এদিকে, জোড়া খুনের খবর পেয়ে জেলা পুলিশ সুপার দেলোয়ার হোসেন পিপিএম এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রওনক জাহানসহ বিপুল পরিমাণ  পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছেন।

মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × two =