বকশীগঞ্জে স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগে স্বামী গ্রেপ্তার

আফজাল শরীফ, বকশীগঞ্জ :  জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলা কামালপুর ইউনিয়নে বালিঝুড়ি গ্রামে স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগে  অভিযুক্ত  স্বামী ছালাম মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার ঢাকা গাজীপুর এলাকায় এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায় যে, প্রায় ১২ বছর আগে বকশীগঞ্জ উপজেলা কামালপুর ইউনয়নের বালিঝুড়ি গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে ছালাম মিয়ার ৩০ সাথে মৃধাপাড়া গ্রামের মিষ্টার আলীর মেয়ে মিরা বেগমের (২৬) বিয়ে হয়। এরপর স্ত্রী মিরা বেগমকে নিয়ে স্বামী ছালাম মিয়া ঢাকা গাজীপুর চলে যায়। সেখানে ছালাম সোয়েটার ফ্যাক্টরিতে ও মিরা বেগম গার্মেন্টেস ফ্যাক্টরিতে চাকরি করতো। গাজীপুর এলাকায় একটি বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করত তারা। তাদের ঘরে ১০ বছর ও ৬ বছরের দুটি সন্তানও আছে। বেশ কিছুদিন ধরে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য চলে আসছিল এবং প্রায়ই মিরাকে শারীরিক নির্যাতন চালাতো ছালাম মিয়া। শুক্রবার রাতে মিরা বেগমকে ছালাম মিয়া খুব মারধর করে। অবশেষে মিরার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় ছালাম। মিরার  চিৎকরে প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করায়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার বিকালে মিরা বেগম মারা যায়। ঐ ঘটনায় শনিবার রাতেই মিরার খালাতো বোন স্বজিনা বেগম টঙ্গি থানায় অভিযোগ করেন। টঙ্গি থানার পুলিশ বকশীগঞ্জ থানার পুলিশকে অবগত করেন। পরে গত কাল সকালে ছালাম মিয়াকে গ্রেপ্তার করে বকশীগঞ্জ থানার পুলিশ।

এব্যাপারে নিহত মিরার খালাতো বোন স্বর্জিনা বেগম জানান, মিরা মারা যাবার আগে বলেছে তার স্বামী ছালাম মিয়া তার শরীরে কেরোসিন দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। আমরা এর সঠিক বিচার চাই।

এব্যাপারে নিহত মিরা বেগমের মামা আলমগীর হোসেন বলেন, মিরার দুটি সন্তান আছে। সে খুব শান্ত স্বভাবের মেয়ে ছিল। দোষীদের শাস্তি দাবি করেন তিনি।

এব্যাপারে বকশীগঞ্জ থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, ছালাম মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং তাকে টঙ্গি থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *