পাকিস্তানে তেলের লরিতে আগুন, নিহত দেড় শতাধিক

পাকিস্তানের ভাওয়ালপুরে একটি তেলবাহী লরি বিস্ফোরিত হয়ে আগুন ধরে গেলে অন্তত ১২৩ জন নিহত হয়েছে।
খবরে বলা হচ্ছে, লরিটি উল্টে গিয়েছিল, সেটি থেকে তেল চুইয়ে পড়ছিল এবং সেই তেল সংগ্রহ করার জন্য বহু মানুষ সেখানে জড়ো হয়েছিল।
এরাই মূলত নিহত হয়েছে। আরো বহু মানুষ আহত হয়েছে যাদেরকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
পাকিস্তানের জিও টিভির সংবাদে বলা হচ্ছে, কেউ হয়তো সেসময় ধূমপান করছিল এবং সিগারেটের আগুন থেকে চুইয়ে পড়া তেলে আগুন ধরে যা এক পর্যায়ে উল্টে পরে থাকা লরিটিকে বিস্ফোরিত করে।
অসমর্থিত খবরে বলা হচ্ছে, অতিরিক্ত গতিতে চলার কারণে সম্ভবত লরিটি উল্টে গিয়েছিল।
ঘটনাস্থল থেকে হতাহতদের সরিয়ে নেয়ার জন্য সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার মোতায়েন করা হয়েছে।
পাকিস্তানের গণমাধ্যমে ঘটনাস্থলের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অগ্নিদগ্ধ মানুষের দেহ ও পুড়ে যাওয়া যানবাহন দেখা যাচ্ছে। আগুন অবশ্য নিভিয়ে ফেলা হয়েছে।
নিহতদের শরীর এতই পুড়ে গেছে যে তাদেরকে চিহ্নিত করার যাচ্ছে না এবং খবরে বলা হচ্ছে এদের পরিচয় জানার জন্য ডিএনএ পরীক্ষার প্রয়োজন হবে।
পাকিস্তানের সামা টিভিতে অগ্নিকাণ্ড পরবর্তী ক্ষয়ক্ষতির চিত্র প্রকাশিত হয়েছে।ছবির
পুলিশের বরাত দিয়ে পাকিস্তানি সরকারি বার্তা সংস্থা এপিপি বলছে যে, ট্যাংকারটিতে ২৫ হাজার লিটার জ্বালানি তেল বহণ করা হচ্ছিল।
করাচি থেকে লাহোরের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল এই তেল।
ট্যাংকারটি আহমেদপুর শারকিয়া শহর থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে কাচিপুল এলাকায় রাস্তার পাশে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে পড়ে।
তখন রাস্তার পাশের গ্রামগুলোর বাসিন্দারা নানারকম পাত্র হাতে ছুটে আসে এবং চুইয়ে পড়া তেল সংগ্রহ করতে শুরু করে।
এসময় তারা তাদের আত্মীয়বান্ধবদেরও টেলিফোন করে খবর দেয় এবং তেল সংগ্রহ করতে আসতে বলে।
ট্রাফিক পুলিশ অতি উৎসাহী এই জনতাকে ঘটনাস্থল থেকে দূরে রাখার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়।
পুলিশ সূত্র বার্তা সংস্থাকে বলছে, হঠাৎ করেই তারা দেখতে পায় লরিটি বিষ্ফোরিত হয়েছে এবং লেলিহান শিখা উপস্থিত মানুষগুোকে গ্রাস করে নিয়েছে।

bbc

মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 − 3 =